মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

মাতৃত্বকালীন ভাতা

মাতৃত্বকালীন ভাতা ও স্বপ্ন প্যাকেজ

বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রতি বছর আমাদের দেশেও মে মাসের দ্বিতীয় রোববার (এ বছর ১১ মে) বিশ্ব মা দিবস উদযাপন করা হয়। দারিদ্র্য দূরীকরণে পিছিয়ে থাকা দেশ হিসেবে আমাদের দেশে মা দিবস পালনের যৌক্তিকতা আছে অনেক। মা দিবসে সভা, সমাবেশ, সেমিনারের মাধ্যমে মায়েদের উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা অব্যাহত থাকে প্রতিবছর। কিন্তু আমরা কখনও ভাবি না আমাদের দেশের দরিদ্র মায়েদের অবস্থানের কথা।
আমাদের দেশের দরিদ্র মায়েদের কথা চিন্তা করে ২০০৭-০৮ অর্থবছরে সরকার মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদানের উদ্যোগটি জাতীয় বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করে।
দরিদ্র মায়েদের মাতৃত্বকালীন অধিকার সংরক্ষণে স্বাস্থ্য শিক্ষাসহ গর্ভকালীন সেবা, প্রসবোত্তর সেবাসহ নিজের ও সন্তানের পুষ্টি খাদ্য খরচ বাবদ মাসে ৩৫০ টাকা করে (একজন মা দুই বছর ভাতার টাকা পাবেন) প্রদান করা হয়। গ্রামে কিছু কিছু জায়গায় এখনও প্রচলন আছে পেটে সন্তান এলে মাকে কম খাওয়াতে হবে। মাতৃত্বকালীন ভাতা দেওয়ার ফলে এ প্রচলনটি ভেঙে যাচ্ছে। পুষ্টিকর খাবার খাওয়া ও স্বাস্থ্য পরিচর্যার জন্য মাতৃত্বকালীন ভাতার টাকা একজন মা খরচ করবেন। এতে সুস্থ শিশুর জন্ম হবে। পুষ্টিহীনতার অভাবে শিশু ও মায়ের মৃত্যু হবে না।
২০০৭-০৮ অর্থবছরে ৪৫ হাজার দরিদ্র মায়ের জন্য মাতৃত্বকালীন ভাতা বরাদ্দ করা হয়। বর্তমানে ভাতাপ্রাপ্ত মায়ের সংখ্যা লক্ষাধিক। প্রথমদিকে ভাতার পরিমাণ ৩০০ টাকা থাকলেও এখন এর পরিমাণ ৩৫০ টাকা। দরিদ্র মা ও শিশু মৃত্যু হ্রাস, মাতৃদুগ্ধ পানের হার বৃদ্ধি, গর্ভাবস্থায় উন্নত পুষ্টি উপাদান গ্রহণ বৃদ্ধি, প্রসব ও প্রসবোত্তর সেবা বৃদ্ধি, ইপিআই ও পরিবার পরিকল্পনা গ্রহণের হার বৃদ্ধি, যৌতুক, তালাক ও বাল্যবিবাহ প্রবণতা রোধ সর্বোপরি জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে এ উদ্যোগ বিশেষ অবদান রাখছে। সরকারিভাবে মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদান কার্যক্রম মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়, মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের মাধ্যমে সারাদেশে বাস্তবায়ন করছে।
অপরদিকে খাদ্য, বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা, বাসস্থান, প্রতিটি নাগরিকের এটি মৌলিক অধিকার বা চাহিদা। অথচ আমাদের দেশে হাজারো মানুষ এসব মৌলিক অধিকার বা চাহিদা থেকে বঞ্চিত। তাই এ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর দারিদ্র্য বিমোচন, দরিদ্রদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, মর্যাদা বৃদ্ধি, সুস্বাস্থ্য গঠন, শিক্ষা, বাসস্থান নিশ্চিতকরণ, মা ও শিশু মৃত্যুহার হ্রাসকরণে বেসরকারি সংস্থা ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন অব দ্য রুরাল পুওর-ডরপ মাতৃত্বকালীন ভাতাপ্রাপ্ত সরকারি চিহ্নিত এসব দরিদ্র মাকে নিয়ে 'স্বপ্ন প্যাকেজ' নামে একটি কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। সোস্যাল অ্যাসিসট্যান্স প্রোগ্রাম ফর নন অ্যাসেটার্স-'স্বপ্ন' প্যাকেজ কর্মসূচিটি দারিদ্র্য নিরসনে সরকারি প্রতিশ্রুতি ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে মাতৃত্বকালীন ভাতাপ্রাপ্ত মা-বাবা-শিশুকেন্দ্রিক পাঁচভিত্তি সংবলিত একটি সমন্বিত সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কার্যক্রম। দারিদ্র্য বিমোচনে এ কার্যক্রমটি বাস্তবিকভাবে সাফল্য লাভ করায় ডরপ সরকারিভাবে এটিও বাস্তবায়নের দাবি জানিয়ে আসছে। মাতৃত্বকালীন ভাতাপ্রাপ্ত প্রতিটি পরিবারের জন্য 'স্বপ্ন প্যাকেজ'-এর ৫টি ভিত্তি হলো : ১. স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জন্মনিয়ন্ত্রণ কার্ড। ২. শিক্ষা ও বিনোদন কার্ড। ৩. স্বাস্থ্যসম্মত ল্যাট্রিনসহ একটি গৃহ। ৪. জীবিকায়ন সরঞ্জাম। ৫. কর্মসংস্থানে সঞ্চয়সহ প্রয়োজনে উন্নয়ন ঋণ (ক্ষুদ্রঋণ) প্রদান করা।

 

ক্রমিক নংনামবয়সস্বামী ও মাতার নামগ্রামওয়ার্ডমন্তব্য
রিমা আক্তার২০

স্বামীঃ রাসেল

মাতাঃ খুদেজা খাতুন

খাগাটি 
রেহেনা বেগম২৯

স্বামীঃ আব্দুল কাদের

মাতাঃ উম্মে কুলছুম

মঠবাড়ী 
শাহনাজ বেগম২০

স্বামীঃ শহিদুল ইসলাম

মাতাঃ জায়দা বেগম

দূর্গাপুর 
শাহানাজ বেগম২৬

স্বামীঃ রিপন মিয়া

মাতাঃ রোকেয়া বেগম

মঠবাড়ী 
খালেদা আক্তার২৩

স্বামীঃ আল আমিন

মাতাঃ হারিছা খাতুন

দূর্গাপুর 
আয়েশা২০

স্বামীঃ মজনু

মাতাঃ ফজিলা খাতুন

মঠবাড়ী 
বেদেনা খাতুন৩৬

স্বামীঃ আঃ খালেক

মাতাঃ শামসুন নাহার

খারহর 
আরিফা খাতুন২০

স্বামীঃ কায়সার হামিদ

মাতাঃ রানী

মঠবাড়ী 
সাবিনা ইয়াসমিন২১

স্বামীঃ রেজাউল করিম

মাতাঃ রহিমা খাতুন

কুড়াগাছা 
১০আকলিমা খাতুন২৭

স্বামীঃ আবুল হাসিম

মাতাঃ জমিলা বেগম

অলহরী 
১১নাছরিন আক্তার২৮

স্বামীঃ শরাফ উদ্দিন

মাতাঃ শারমিন আক্তার

খাগাটি 
১২লিপি বেগম৩০

স্বামীঃ হালিম মিয়া

মাতাঃ রাবিয়া খাতুন

মঠবাড়ী 
১৩বিউটি আক্তার২০

স্বামীঃ রফিকুল ইসলাম

মাতাঃ নূরজাহান

অলহরী 
১৪রেখা২৫

স্বামীঃ মফিজুল ইসলাম

মাতাঃ রাবেয়া খাতুন

অলহরী 
১৫শিউলী আক্তার২০

স্বামীঃ শরিফুল ইসলাম

মাতাঃ নূরজাহান

অলহরী 
১৬আকলিমা আক্তার২০

স্বামীঃ জহিরুল ইসলাম

মাতাঃ ফিরুজা খাতুন

মঠবাড়ী 
১৭নাজমা আক্তার২৯

স্বামীঃ আবু বকর সিদ্দিক

মাতাঃ রাবিয়া আক্তার

জয়দা 
১৮রওশন আরা বেগম২৭

স্বামীঃ আলমগীর হোসেন

মাতাঃ জোস্নারা বেগম

জয়দা 
১৯জান্নাতুল ফেরদৌস২৩

স্বামীঃ মোঃ বদিউজ্জামান

মাতাঃ ফিরোজা বেগম

খাগাটি 
২০সাবিনা আক্তার২০

স্বামীঃ হুমায়ূন কবীর

মাতাঃ নার্গিস আক্তার

অলহরী 
২১রমিছা খাতুন৩০

স্বামীঃ আনোয়ার হোসেন

মাতাঃ গোলাপী বেগম

মঠবাড়ী 
২২মাকমুদা আক্তার২৫স্বামীঃ সাইদুর রহমানমঠবাড়ী 
২৩নিলুফা২০

স্বামীঃ মারুফ মিয়া

মাতাঃ মজিদা

মঠবাড়ী 
২৪রানী বেগম৩৪

স্বামীঃ সাইদুল ইসলাম

মাতাঃ সুফিয়া খাতুন

মঠবাড়ী 
২৫নাঈমাতুল জান্নাত২০

স্বামীঃ মনির হোসেন

মাতাঃ গুলনাহার

মঠবাড়ী 
২৬আছমা আক্তার২৫

স্বামীঃ শাহজাহান

মাতাঃ হাজেরা খাতুন

মঠবাড়ী 
২৭লাকী আক্তার১৯

স্বামীঃ ইউছুফ আলী

মাতাঃ রেহেনা খাতুন

মঠবাড়ী 
২৮ফাহিমা খাতুন২৫

স্বামীঃ আব্দুল্লাহ

মাতাঃ জাহানারা

জয়দা 
২৯বিউটি আক্তার২৬

স্বামীঃ আব্দুল হাসিম

মাতাঃ আয়েশা বেগম

দূর্গাপুর 
৩০সাবিনা  ইয়াসমিন৩৪

স্বামীঃ আমিরুল ইসলাম

মাতাঃ ফেরদৌসী বেগম

জয়দা 
৩১হাছিনা২৪

স্বামীঃ শহিদুল

মাতাঃ সাজেদা

জয়দা 
৩২নাসিমা২৭

স্বামীঃ সোহাগ মিয়া

মাতাঃ আনোয়ারা বেগম

অলহরী 
৩৩সাবিনা ইয়াসমিন২৭

স্বামীঃ আঃ হালিম

মাতাঃ রাশিদা খাতুন

দূর্গাপুর 
৩৪নার্গিস আক্তার২১

স্বামীঃ ইলিয়াস

মাতাঃ খালেদা বেগম

দূর্গাপুর 
৩৫উম্মে কুলছুম২৬

স্বামীঃ শাহাজাহান

মাতাঃ ফরিদা কাতুন

দূর্গাপুর 
৩৬আকলিমা আক্তার২৪

স্বামীঃ জাহিদ

মাতাঃ রাশিদা বেগম

জয়দা 
৩৭নাছিমা খাতুন২৮

স্বামীঃ হানিফ মিয়া

মাতাঃ হাজেরা খাতুন

অলহরী 
৩৮রেজিয়া আক্তার২৬

স্বামীঃ আঃ মোতালেব

মাতাঃ মজিদা

অলহরী 
৩৯সাহারিয়া আফরিন সাহিদা১৯

স্বামীঃ আঃ মতিন

মাতাঃ আক্তারা বেগম

অলহরী 
৪০রহিমা খাতুন২৬

স্বামীঃ তারা মিয়া

মাতাঃ হাফিজা

অলহরী 
৪১নাছিমা খাতুন৩২

স্বামীঃ চাঁন মিয়া

মাতাঃ ফজিলা বেগম

অলহরী 
৪২কুসুম২৭

স্বামীঃ ইউসুফ আলী

মাতাঃ শাহানাজ

অলহরী 
৪৩শিউলী আক্তার২৮

স্বামীঃ আঃ রহমান

মাতাঃ রাশিদা খাতুন

খারহর 
৪৪ফাতেমা খাতুন৩৬

স্বামীঃ মোফাজ্জল হোসেন

মাতাঃ রুকেয়া খাতুন

খারহর 
৪৫জেসমিন আক্তার২২

স্বামীঃ শাহজাহান

মাতাঃ রাশিদা খাতুন

খারহর 
৪৬ছাহেরা খাতুন২৭

স্বামীঃ আনিছুর রহমান

মাতাঃ পারভিন আক্তার

খারহর 
৪৭মাহমুদা আক্তার রিয়া২০

স্বামীঃ আমিনুল ইসলাম

মাতাঃ জয়নব বেগম

পোড়াবাড়ী 
৪৮দিলরুবা খাতুন২৬

স্বামীঃ বাবুল মিয়া

মাতাঃ রেজিয়া খাতুন

খাগাটি 
       


Share with :

Facebook Twitter